আমেরিকার মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি “জিউনিস গ্লোবাল” এর ঝুড়িতে সাত শতাধিক পুরষ্কার

1890
  |  সোমবার, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৯ |  ১০:২৭ পূর্বাহ্ণ

২০০৯ সাল থেকে ডিরেক্ট সেলিং বিজনেসে সফলতার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে জিউনিস গ্লোবাল (Jeunesse Global ) । প্রতিষ্ঠানটির সফলতার পেছনে মূল হাতিয়ার হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটির অনন্য প্রোডাক্ট লাইন ও প্রোডাক্টের গুনগত মান। আমেরিকার সেরা ১০ জন ডাক্তারের আবিস্কার করা মেডিসিন নিয়ে যাত্রা শুরু হয় জিউনাস গ্লোবাল । যাদের মধ্যে দুই জন ডাক্তার নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত ছিল । কোম্পানীর সেরা মেডিসিনের তালিকায় রয়েছে রিজার্ভ মেডিসিন । যা ডায়াবেটিস ,ক্যান্সার , স্ট্রোক , চোখের সমস্যা , উচ্চ রক্তচাপ, লিভার সিরোসিস , হার্ট ডিসিস এর জন্য কার্যকর হিসেবে কাজ করে ।

www.jeunesseglobal.com

Advertisement

জিউনিস গ্লোবাল এমন সব প্রোডাক্ট নিয়ে বিজনেস করে যা মানুষের সুস্বাস্থ, সৌন্দর্য ও যৌবন ধরে রাখতে সহায়তা করে। প্রতিষ্ঠানটি ২০১৫ সালেই ডিরেক্ট সেলিং বিজনেসে সর্বকনিষ্ঠ প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিলিয়ন ডলার বিক্রয় রেখায় পৌছাতে সক্ষম হয়। তার পর থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি প্রতিষ্ঠানটির। একের পর এক পুরষ্কার পেয়ে ডিরেক্ট সেলিং বিজনেসে নিজেদেরর অবস্থান মজবুত করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। গত ১০ বছরে সর্বমোট পুরষ্কার পেয়েছে ৭২০ টি। বর্তমানে সারা বিশ্বে প্রায় ১৫৬টি দেশে তারা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করছে। গত বছর বিশ্বজুড়ে প্রায় ১.৪৬ বিলিয়ন পন্য বিক্রয় করে প্রতিষ্ঠানটি তার পূর্বের সকল বিক্রয় রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়েছে। আমেরিকার সেরা ৫০০ টি কোম্পানীর তালিকায় রয়েছে জিউনাস গ্লোবাল। এছাড়া বিশ্বের সেরা ১৩২টি নেটওয়ার্ক কোম্পানীর মধ্যে জিউনিস গ্লোবালের অবস্থান ১৪তম ।

এদিকে বছরের শেষের দিকে বাংলাদেশে অফিসিয়ালি জিউনিস গ্লোবালের অনলাইন ব্যবসা চালু করতে যাচ্ছে । ইতিমধ্যে তারা গুলশানে তাদের প্রধান কার্যালয়ের জন্য ভবন ঠিক করেছে ।

 

জিউনাস গ্লোবাল ১৫৬ টি দেশে অনলাইন / অফলাইন মার্কেটিং বাবদ কোন প্রকার খরচ করতে হচ্ছে না । ফলে তারা ডিস্ট্রিবিউটদের মাঝে অধীক মুনাফা বন্টন করে যাচ্ছে । তাই কোম্পানীটি থেকে কয়েক মাসের মধ্যে প্রতি মাসে প্রায় ২ থেকে ৩৫ লক্ষ টাকা মুনাফা অর্জন করা সম্ভব বলে জানান প্রতিষ্ঠানটি ।

প্রতিষ্ঠানটির সফলতার পেছনে আরেকটি বড় নিয়ামক হচ্ছে ওয়েন্ডি লুইস ও রেন্ডি রেই এর দক্ষ পরিচালনা। ওযেন্ডি লুইস হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটির ফাউন্ডার যিনি ডিরেক্ট সেলিং বিজনেসে সবচেয়ে প্রভাশালী নারী হিসেবে পর পর তিন বার ডিএসএন এওয়ার্ড লাভ করেন। তিনি শ্রেষ্ঠ নারী উদ্যোক্তা ও পরিচালক হিসেবেও পুরষ্কার পেয়েছেন বেশ কয়েকবার। এছাড়াও তার প্রতিষ্ঠিত জিউনিস কিডস্ ফাউন্ডেশনের জন্য ২০১৮ সালে উইমেন এওয়্যার্ড ”চ্যাম্পিয়ন অব দ্যা ইয়ার” পুরষ্কার পেয়েছেন।

জিউনিস গ্লোবালের সফলতার পেছনে আরেকজন মহারথি হচ্ছেন রেন্ডি রেই। রেন্ডি রেই পড়াশুনা করেছেন কম্পিউটার সাইন্স ও সাইকোলোজি নিয়ে। তিনি নাসার মত অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠানের জন্য অনেক হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার ডিজাইন করেছেন। তিনি ডিরেক্ট সেলিং বিজনেসে প্রবেশ করেন দুই দশক আগে। তিনি ২০০৩ ও ২০০৪ সালে ”ফ্লোরিডা বিজনেসম্যান অব দ্যা ইয়ার” পুরষ্কার পেয়েছিলেন। গত বছর তিনি আমেরিকান বিজনেস এওয়্যার্ড ”এক্সিকিউটিভ অব দ্যা ইয়ার” লাভ করেন। ২০০৯ সালে ওয়েন্ডি লুইসের সাথে মিলে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন জিউনিস গ্লোবাল।

 

এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি জানান , প্রচলিত পদ্ধতিতে কোন পন্য কােম্পানি থেকে উৎপাদিত হয়ে এজেন্ট, পাইকার বিক্রেতা, খুচরা বিক্রেতা এর হাত ঘুরে ভোক্তা পযার্য়ে পৌঁছায়। কিন্তু জিউনিস গ্লোবাল উৎপাদিত পন্য এজেন্ট, পাইকার বিক্রেতা ও খুচরা বিত্রেতার মাধ্যেমে না এসে সরাসরি ভোক্তা পর্যায়ে পৌঁছায় । ফলে ডিরেক্ট সেলিং বা নেটওয়ার্ক মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে সেই ব্যাক্তি পন্য ক্রয় করে কমিশন লাভ করে একটা স্থায়ী আয়ের পথের সূচনা করে ।

Advertisement