পটুয়াখালিতে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ: ছাত্রলীগ সভাপতি ও প্রক্টরসহ আহত ১০

0

c968efb045106c15a76dbbdd2cc8e1ba_XLন্যাশনাল ডেস্ক ::  পটুয়াখালিতে বাসের সিটে বসাকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর এবং ছাত্রলীগ সভাপতিসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে।

রোববার রাতের এ ঘটনার জের ধরে সোমবার সকালে ফের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষের সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শের-ই-বাংলা ও এম কেরামত আলী হলের বেশ কয়েকটি কক্ষে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‍্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

রোববার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসের সিটে বসাকে কেন্দ্র করে দু’জন ছাত্রের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতি হয়। এর জের ধরে ছাত্রলীগ নেতা কামরুল ইসলামের অনুসারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের জয়বাংলা চত্বরে প্রতিপক্ষের দুজনকে  মারধর করেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে প্রতিপক্ষের  ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম কেরামত আলী হল থেকে লঠিসোটা নিয়ে শেরে-ই-বাংলা হলের বিভিন্ন কক্ষে ভাঙচুর চালায়। এ সময় তারা ছাত্রলীগ নেতা কামরুলের কয়েকজন অনুসারীকে মারধর করে। রাত ১১টার পর দফায় দফায় সংঘর্ষ চলতে থাকে। রাত ২টার দিকে দুমকি থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

রাতে পরিস্থিতি কিছুটা থমথমে থাকার পর আজ সোমবার সকালে পুলিশের উপস্থিতিতে ফের সংঘর্ষে জড়ায় ছাত্রলীগের দু’গ্রুপ। এ সময় এম কেরামত আলী হলের বিভিন্ন কক্ষে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় ছাত্রলীগ। পরে ক্যাম্পাসে র‍্যাব প্রবেশ করলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

দফায় দফায় সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর সন্তোষ কুমার বোস, ছাত্রলীগ সভাপতি আনিসুজ্জামান আনিস, ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক মার্শাল অভি, এম কেরামত আলী হল শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাইমিনুল ইসলামসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়।

সংঘর্ষে গুরুত্বর আহত মোহাইমিনুল, তানিম, অভি, তাজিন ও মুন্নাকে বিশ্ববিদ্যালয় হেলথ কেয়ার সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। ফের সংঘর্ষের আশঙ্কায় ক্যাম্পাসে পুলিশ ও র‍্যাব মোতায়েন রয়েছে।

এদিকে,  গরু নিলামকে কেন্দ্র করে সাভারে প্রাণী সম্পদ কেন্দ্রে (বিএলআরআইয়ে) আজ সোমবার দুপুরে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ আহত হয়েছে অন্তত ৬ জন। আহতদের মধ্য রাসেল নামের একজনকে মুমুর্ষ অবস্থায় সাভারের এনাম মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের চিকিৎসা স্থানীয় ক্লিনিকে চলছে।

প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানায়, কুরবানীর ঈদকে সামনে রেখে প্রাণি সম্পদকেন্দ্রে গরুর নিলাম চলছিল আজ। নিলামকে কেন্দ্র করে প্রাণিসম্পদ কেন্দ্রে বিপুল সংখ্যক লোকের উপস্থিতি ছিল ঘটনাস্থলে। হঠাৎ তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

Share.

Leave A Reply

one + 8 =