ভুল ধারণার কারণেই লন্ডন থেকে ঢাকাগামী বাংলাদেশী যাত্রীদের কাতার এয়ারওয়েজের বোর্ডিং পাস দেয় নি

1218
  |  বুধবার, জুলাই ২৯, ২০২০ |  ১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ

শুধুমাত্র ভুল ধারণার কারণেই লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে ঢাকাগামী ব্রিটিশ-বাংলাদেশি যাত্রীদের বোর্ডিং পাস না দিয়ে ফিরিয়ে দেয় কাতার এয়ারওয়েজে। যাত্রী ফিরিয়ে দেওয়া প্রসঙ্গে লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন কাতার এয়ারওয়েজের কাছে ব্যাখ্যা চাইলে এই তথ্য জানায়।

কাতার এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষ হাই কমিশনকে জানায়, তাদের তথ্য মতে গত ২৩ জুলাই বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের একটি আদেশ অনুযায়ী “বাংলাদেশ থেকে বহিরাগত এবং বিদেশ থেকে বাংলাদেশগামী সকল যাত্রীকেই কোভিড-১৯ নেগেটিভ পিসিআর টেস্ট রেজাল্ট দেখাতে হবে”। এই ভুল ধারনা নিয়ে তারা ওই তিনজন যাত্রীকে বোর্ডিং পাস না দিয়ে ভ্রমণের জন্য কোভিড-১৯ নেগেটিভ পিসিআর টেস্ট রেজাল্ট নিয়ে আসার পরামর্শ দেয়।

Advertisement

পরবর্তীতে লন্ডন হাই কমিশন বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সাথে এ বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য যোগাযোগ করে জানতে পারে যে, প্রকৃতপক্ষে বিদেশ থেকে বাংলাদেশগামী বাংলাদেশি ও ব্রিটিশ-বাংলাদেশি যাত্রীদের জন্য কোভিড-১৯ নেগেটিভ পিসিআর টেস্ট রেজাল্ট দেখানোর কোনো বাধ্যবাধকতা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক আরোপ করা হয়নি। শুধুমাত্র বাংলাদেশগামী বিদেশি নাগরিক ও যেসব প্রবাসী বাংলাদেশির এনভিআর নেই এবং বাংলাদেশ থেকে যারা বিদেশ যেতে চান সেসকল যাত্রীদের জন্যই এটি প্রযোজ্য।
বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ ঢাকাস্থ কাতার এয়ারওয়েজের কাছে সরকারের সংশ্লিষ্ট আদেশের ভুল ব্যাখ্যা করে তিনজন ব্রিটিশ-বাংলাদেশি যাত্রীকে বোর্ডিং পাস না-দিয়ে যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করা হয়েছে তার ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছে।
বাংলাদেশ হাই কমিশন, লন্ডনও তিনজন ব্রিটিশ-বাংলাদেশি যাত্রীকে বোর্ডিং পাস না-দিয়ে হয়রানি করার প্রতিবাদ জানিয়ে গত সোমবার লন্ডনস্থ কাতার এয়ারওয়েজেকে ভূক্তভোগী যাত্রীদের কাছে তাদের ভুল স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করার এবং এ বিষয়ে সৃষ্ট সব বিভ্রান্তির অবসান ঘটানোর পরামর্শ দিয়েছে।
লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন জানায়, বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক এ সংক্রান্ত নতুন কোনো নির্দেশনা না-দেয়া পর্যন্ত লন্ডন থেকে বাংলাদেশগামী ব্রিটিশ-বাংলাদেশি (যাদের এনভিআর রয়েছে) যাত্রীদের কোনো এয়ারলাইন্সেই ভ্রমণের জন্য কোভিড-১৯ নেগেটিভ পিসিআর টেস্ট রেজাল্ট দেখানোর প্রয়োজন নেই। তবে যেসকল ব্রিটিশ-বাংলাদেশি যাত্রী লন্ডনস্থ হাই কমিশন থেকে ‘হেলথ ডিক্লারেশন ফরম‌’ সত্যায়িত করতে চান তারা হাই কমিশনের ওয়েব-সাইটে দেয়া নিয়ম-নীতি অনুসরণ করে তা সংগ্রহ করতে পারেন। যা বাংলাদেশের বিমানবন্দরে অবতরণের পর হেলথ চেক-আপ সাপেক্ষে তাদের সহায়ক হতে পারে।
উল্লেখ্য, করোনা মহামারির প্রেক্ষাপটে গত মার্চ মাস থেকে লন্ডন হাই কমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সাপ্তাহিক ছুটির দিন শনি এবং রবিবারেও দীর্ঘ সময় কাজ করে দুটি বিশেষ চার্টার্ড ফ্লাইটসহ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও অন্যান্য এয়ারলাইন্সের নিয়মিত ফ্লাইটের বাংলাদেশি ও ব্রিটিশ-বাংলাদেশি যাত্রীদের ‘হেলথ ডিক্লারেশন ফরম’ সংশ্লিষ্ট নিয়ম-নীতি অনুসরণ করে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে সত্যায়িত করে দিয়েছেন বলে হাই কমিশন জানায়।

Advertisement