এমাজউদ্দীন আহমদ ছিলেন জাতির বাতিঘর

311
  |  রবিবার, জুলাই ১৯, ২০২০ |  ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড এমাজউদ্দীন আহমদ জাতির বাতিঘর ছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারনী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যরা।তারা মনে করেন,এমাজউদ্দীন আহমদের গবেষণা এবং প্রকাশিত পুস্তকসমূহ দেশে বিদেশে সমাদৃত হয়েছে।অধ্যাপক এমাজউদ্দীনের মতো সাহসী স্পষ্ট বাদী মুক্ত চিন্তার ব্যক্তিত্ব সমাজে বিরল।তিনি জাতির বাতিঘর ছিলেন।তার মৃত্যুতে যে শুন্যতা সৃষ্টি হলো তা পূরণ হবার নয়।জেরােজ শনিবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক ভার্চুয়াল বৈঠক এসব কথা বলা হয়। প্রায় দুই ঘণ্ট্যাব্যাপী এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সভাপতিত্বে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বরাত দিয়ে দলটির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান বাংলাদেশ জার্নালকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বৈঠকেগত ১৭ জুলাই অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের মৃত্যুতে স্থায়ী কমিটি গভীর শোক প্রকাশ করে।সভা মনে করে যে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের মৃত্যুতে দেশ একজন বরণ্য রাষ্ট্র বিজ্ঞানী ও নিবেদিত প্রাণ শিক্ষাবিদকে হারলো।কারণ অধ্যাপক এমাজউদ্দীন শুধু শিক্ষাবিদই ছিলেন না তিনি স্বাধীনতা স্বার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের অতন্দ্র প্রহরী ছিলেন।বৈঠকে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।অন্যদিকে বৈঠকে স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠকারী, স্বাধীনতা সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শাজাহান সিরাজের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়। বৈঠকে বলা হয়, শাজাহান সিরাজ এদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তি যুদ্ধে যে অবদান রেখেছেন তা সবসময়ই স্বর্ণা অক্ষরে লিখিত থাকবে। সভা শাজাহানের রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে।

Advertisement

এছাড়া সভায় সাবেক মন্ত্রী ও যুবদলের প্রতিষ্ঠা সভাপতি এবং মুক্তি যুদ্ধের সংগঠক আবুল কাসেমের ইন্তেকালে গভীর শোক জ্ঞাপন করে। বৈঠকে বক্তব্যে, কাসেম একজন মুক্তি যুদ্ধে অন্যতম সংগঠক ছিলেন এবং তিনি যুবদলের প্রতিষ্ঠা সভাপতি হিসাবে অন্যন অবদান রাখেন। সভা তার রুহের মাগফেরাত কামনা করে এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করে।এদিকে বৈঠকে চলমান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মৃত্যু বরণ করেছেন তাদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে রুহের মাগফেরাত কামনা করে এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব ছাড়া দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

Advertisement