ইংল্যান্ড জুড়ে মদপ্যদের অধিপত্যের রাত ছিলো শনিবার

409
  |  রবিবার, জুলাই ৫, ২০২০ |  ৩:১৩ অপরাহ্ণ

টানা তিন মাসের লকডাউন শেষে ইংল্যান্ডের বার ও রেস্তোরাগুলো খুলে যাওয়ার পর মদপ্য তরুণ-তরুণীরা ব্যাপক উন্মাদনায় রাস্তায় নেমে এসেছে শনিবার রাতে। অবশ্য এই পরিস্থিতি আগে থেকেই ধারণা করা হয়েছিলো। আর তাই দিনটিকে ঘোষণা করে রাখা হয়েছিরো ‘সুপার সেটারডে’ হিসেবে।

Advertisement

ইংল্যান্ড জুড়ে উদযাপনের এই মাতাল রাতে সামাজিক দূরত্ব মেনে না চলারও অভিযোগ উঠেছে অনেকের বিরুদ্ধে। যে বিষয়ে আগে থেকেই প্রসাশন বার বার হুশিয়ারি দিয়ে আসছিলো।

অ্যালকোহল সম্পৃক্ত অসমাজিক আচরণে লিপ্ত হয়ে পড়ার অভিযোগে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং সারাদেশে বেশ কয়েকটি পাব নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এদিকে এমন লন্ডনজুড়ে তৈরি হওয়া ঝটলার চিত্রগুলো এই আশংকাকে উসকে দিচ্ছে যে শহরটি আবারো সংক্রমনের বৈজ্ঞানিক সূচক ‘আর‌‌‘ বৃদ্ধি পেয়ে এক নম্বরে পৌঁছে যেতে পারে।

শনিবার দিনভর পানশালগুলোর সামনে লোকদের লম্বা লাইন দেখা গেছে এবং অনেককেই পাবের ভিতরে প্রবেশের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা লাইন ধরে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

নরউউচ, নিউক্যাসল, ব্রিস্টল ও লন্ডনসহ শহরগুলির যে চিত্র দেখা গেছে তাতে দেখা যায়, রাত গভীর হতেই মানুষের মধ্যে উচ্ছাস বেড়েছে এবং তা ক্রমে বুনো উল্লাসে রূপ নিয়েছে।

এ সময় মূলত সরকারের দেয়া নির্দেশনা মেনে এক মিটার দূরত্বের বিধানটি কারো মাথায় ছিলো বলেই মনে হয়নি।

নটিংহামশায়ারের পুলিশ জানিয়েছে, এসময় কয়েকটি বাড়ির জানালা ভাঙা ও ছোটখাটো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে এবং এর ফলে বেশ কিছু পানশালা বন্ধ করে দিতে হয়েছে।

সুপার সেটারডের এই উত্তেজনা অবশ্য আগেই টের পেয়িছিলো কর্তৃপক্ষ, এবং নেয়া হয়েছিলো নানামুখি পদক্ষেপও। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ানের পাশাপাশি হাসপাতালগুলোকেও প্রস্তুত রাখা হয়েছিলো পরিস্থিতি সামাল দেয়ার জন্য।

Advertisement