ভূমধ্যসাগর থেকে বাংলাদেশী সহ ৭০০ অভিবাসীকে উদ্ধার, মৃত ২৩

0
34

আন্তর্জাতিকঃ ভূমধ্যসাগর থেকে বাংলাদেশী সহ কমপক্ষে ৭০০ অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে ইতালির কোস্ট গার্ডরা। উদ্ধার করা হয়েছে ২৩ জনের মৃতদেহে। তবে তার মধ্যে কোনো বাংলাদেশী রয়েছেন কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায় নি। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। এতে বলা হয়, শুক্রবার ভূমধ্যসাগরে অভিযান চালায় ইতালির কোট গার্ডরা। তারা বলেছে, এ সপ্তাহে ওই অঞ্চলে এই প্রাণহানীর সংখ্যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের অপারেশন সোফিয়ার অধীনে স্পেনের একটি জাহাজ মোতায়েন রয়েছে ভূমধ্যসাগরে। তা থেকে মৃতদেহগুলো গণনা করা হয়েছে। মিশনের ফেসবুক পেজে বলা হয়েছে, রাববারে তৈরি একটি বোট ডুবে যাচ্ছিল সমুদ্রে। এ সময় সেখানে অভিযান চালিয়ে ৬৪ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। এ দিনটিকে ভূমধ্যসাগরে একটি কঠিন দিন হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। শুক্রবার এরপর সেখানে ছয়টি উদ্ধার অভিযান চালানো হয়। এতে অংশ নেয় ইতালির কোস্ট গার্ডের জাহাজ ডিসিত্তো। দক্ষিণের রেজ্জিও কালাব্রিয়া বন্দর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তারা একটি বোট থেকে উদ্ধার করে ৭৬৪ জন অভিবাসীকে। এ সময় তারা উদ্ধার করে আরো আটটি মৃতদেহ। যাদেরকে উদ্ধার করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশী, সাব সাহারান আফ্রিকা, পাকিস্তান, লিবিয়া, বাংলাদেশ, আলজেরিয়া, মিশর, নেপাল, মরক্কো, শ্রীলঙ্কা, ইয়েমেন, সিরিয়া, জর্ডান ও লেবাননের নাগরিক। এই শুক্রবারেই আজিয়ান সাগরে ডুবে মারা গেছে তিন জন। নিখোঁজ রয়েছে ৬ জন। তিন বছর আগে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে জীবন বাজি রেখে সমুদ্রপথে পাড়ি জমিয়েছিলেন হাজার হাজার শরণার্থী। দলে দলে তারা ভিড় জমাচ্ছিলেন সীমান্তে। এরই এক পর্যায়ে আয়লান কুর্দির মৃতদেহ উদ্ধার করা হয় সৈকতে। সেই ছবি সারা বিশ্বকে কাঁদিয়েছে। সেই যাত্রার পর অনেকটাই কমেছিল ইউরোপ যাত্রা। কিন্তু সম্প্রতি সেই প্রবণতা আবার দেখা যাচ্ছে। বুধবারও এভাবে ইউরোপে পাড়ি দেয়ার পথে মারা যাওয়া সাত জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বাঁচানো গেছে ৯০০ অভিবাসীকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here