রোহিঙ্গাদের উল্লেখ না করেই বাস্তুচ্যুতদের ফেরার আহ্বান মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের

0

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মিয়ানমারের সেনাবাহিনী প্রধান মিন অং লাইং রাখাইনে সহিংসতায় অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের রাখাইনে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাখাইন প্রদেশে দেয়া ভাষণে তিনি বলেন, সেখানে মিয়ানমারের ‘ন্যাশনাল রেস’ এর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে।  তার ভাষণে হত্যা, অগ্নিসংযোগ, ধর্ষণের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়া ৪ লাখ ২২ হাজার রোহিঙ্গার বিষয়ে কোনো কথা ছিল না।বরং নতুন করে সহিংসতা শুরু হওয়ার পরে প্রথমবার রাখাইনে গিয়ে অং লাইং বলেন, রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের গত ২৫ আগস্ট সমন্বিত হামলার পরে সেনাবাহিনী িসম্ভব সবচেয়ে ভাল পদ্ধতিতে এর মোকাবেলা করেছে। জাতিসংঘ ওই হামলার জবাবে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে পরিচালিত ‘ক্লিয়ারেন্স অভিযানকে’ জাতিগত হত্যাকাণ্ড বলে অভিহিত করে।

কিন্তু মিয়ানমারের দাবি যেসব ‘মুসলিম সন্ত্রাসী’ বৌদ্ধদের ও অন্যান্য অমুসলিমদের উপর হামলা চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে ‘বৈধ অভিযান’ পরিচালনা করা হচ্ছে। তাদের দাবি এতে ৩০ হাজার মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। রাখাইনের সিতওয়েতে দেয়া ভাষণে অং লাইং বলেন, আমাদের নিজস্ব জাতিগত গোষ্ঠীগুলোর পুনর্বাসনের ক্ষেত্রে বলতে চাই যারা তাদের বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে প্রথমে তাদের বাড়িতে ফিরতে হবে। ‘ন্যাশনাল রেস’ শব্দটির মাধ্যমে সরকারিভাবে স্বীকৃত জাতিগোষ্ঠীগুলোর কথা বুঝিয়ে থাকে মিয়ানমার। রোহিঙ্গাদের স্বীকৃতি দেয়া হয়নি এবং তাদের  অবৈধ অভিবাসী হিসেবে অভিহিত করা হয়।লাইং যোগ করেন, গুরুত্বপুর্ণ বিষয় হচ্ছে রাখাইনে আমাদের ‘জাতিগত গোষ্ঠীর’ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আমাদের জাতিগত গোষ্ঠীর ব্যক্তিরা যদি তাদের নিজের জায়গায় না থাকে তাহলে আমরা তাদের জন্য কিছু করতে পারবো না। লাইং তার বক্তব্যে একবারের জন্য রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে নিপীড়নের শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা মুসলিমদের কথা বলেননি। রয়টার্স।

Share.

Leave A Reply