নববর্ষে ভোজনরসিকদের নজর কাড়বে আফগান!

0

জালালউদ্দিন সাগর :: কথায় আছে বাঙালি মানেই ভোজনরসিক । পৌষ-পার্বনে বাঙালি ভোজনরসিকদের ভুরি ভোজটা একটু বেশিই হয়। হোক তা ঈদ কিংবা বাংলা নববর্ষ ।

বাঙালির জন জীবনের পরতে পরতে জড়িয়ে রয়েছে এ ভূখণ্ডে উৎপাদিত ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন রকম সুস্বাদু খাবারের তালিকা। ভাত, মাছ, শাকসবজি, ফলফলাদি, দুধ, ঝাল, টক, তিতা, মিষ্টান্নসহ সব ধরনের খাবারে বাঙালির অরুচি নেই। আর যখন বারো মাসে তেরো পার্বণের দেশে ক্ষণে ক্ষণে লাগে উৎসবের আমেজ, তখন তো কথাই নেই।

অপরিহার্যভাবে নির্দিষ্ট কিছু খাবার এর সঙ্গী হয়। যেমন হয় ধর্ম-বিত্ত নির্বিশেষে সব বাঙালির মিলনক্ষণ পয়লা বৈশাখ, তথা বাংলাবর্ষের প্রথম দিন পয়লা বৈশাখে। শুধু পয়লা বৈশাখের দিনই নয়, এ উৎসবকে দীর্ঘায়িত করতে কোনো কোনো সময় তা এক মাস পযন্ত টেনে নেওয়া হয়। আবার বাংলা সনের শেষতম মাস চৈত্রের শেষ দিন, অর্থাৎ চৈত্রসংক্রান্তিকে বরণ করে নেওয়ার জন্য মহা ধুমধাম করে উৎসব পালন করা হয়ে থাকে।

চট্টগ্রামে এখনো বৈশাখ মাসের সকালবেলায় এক মুঠো চাল ও নলবিশিষ্ট মাটির পানপাত্র ‘কত্তি’তে পানি খেয়ে অনেক চাষি মাঠ চাষ করতে যান। তাঁরা মনে করেন, এতে করে সারা শরীর সারা বেলা শীতল থাকে। আদিম রীতির পরিচায়ক এ অনুষ্ঠানটি আমাদের মনে করিয়ে দেয়, মানুষ পাক করতে ও তাকে সঞ্চয় করে রেখে বাসি করে খেতে শিখেছে। কৃষকের পান্তাভাত খাওয়ার পেছনে সারা বছর ভালো ভালো খাবার-দাবার খাওয়ার কামনাটাই প্রকাশ পেয়েছে।

অবশ্য পয়লা বৈশাখের সারাটি দিন ধরে যে শুধু পান্তা খেয়ে সবার পেট পুরে তাও নয়, বছরের শুরুর এই দিনে সবাই চায়, প্রতিটি বেলায় ভালো ভালো খাবার খেতে।

শুধু যে ঘরে রান্না করা খাবারে পেট ভরে তা কিন্তু একদম ঠিক না । অন্যান্য দিনের চেয়ে নববর্ষের দিনে পরিবার-পরিজন নিয়ে বেড়াতে মন চায় সবার । সে কারণেই বাহিরের ভালো কোনো রেস্টুরেন্টের সুস্বাদু খাবারে দিকে তাকিয়ে জীভে জল আসে ছোট-বড় সবার।

এই বৈশাখে নগরীর বেশ কিছু রেস্টুরেন্ট মুখরোচক সব বাঙালি খাবার ঢালি সাজিয়ে বসবে ভোজনরসিক ক্রেতাদেও জন্য । তারমধ্যে অন্যতম চট্টগ্রাম নগরীর নাসিরাবাদস্থ ২নং গেইটের আফগান রেস্টুরেন্ট ।

এই বৈশাখে আফগানের বিশেষ অফারে থাকছে ৫টি খাবার ম্যানুতে হরেক রকম স্বাদ। তার মধ্যে রয়েছে ৯শত ৯৯ টাকায় পদ্ম , ৭শ৯৯ টাকায় মেঘনা, ৭শ৯৯ টাকায় যমুনা, ৬শ৯৯ টাকায় হায়দারাবাদি এবং ৭শ৯৯ টাকায় আফগানি খাবারের সুযোগ।

নববর্ষের আফগান রেস্টুরেন্টের আয়োজন সম্পর্কে জানতে চাইলে, কর্ণধার সাফওয়ান বলেন, আফগান রেস্টুরেন্ট কোয়ালিটিতে বিশ্বাস করে । সেকারণে আফগানের প্রতিটি আইটেমে খাবারের প্রকৃত স্বাদ পাওয়া যায়।

……………………

/মল্লিক/

Share.

Leave A Reply

three + fifteen =